age-calculator

অনলাইন বয়স ক্যালকুলেটর | বয়স বের করার নিয়ম ২০২৪

প্রিয় পাঠক, শুভেচ্ছা জানবেন। এই ব্লগে আমরা বয়স বের করার নিয়ম ও বয়স ক্যালকুলেটর সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা পাবো। এই অ্যার্টিকেল থেকে পাঠকরা সহজেই নিজেদের বয়স নির্ধারণ করা এবং এর গুরুত্বপূর্ণ সম্পর্কে জানবে। এছাড়াও, এই ব্লগ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের মাধ্যমে পাঠকরা নিজেদের বয়স নির্ধারণে সহায়তা পেতে পারবেন এবং তাদের জীবনের নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে বয়সের গুরুত্ব বুঝতে পারবেন। একই সাথে থাকছে হিজিবিজি নিজস্ব একটি বয়স ক্যালকুলেটর। 

এছাড়াও আপনি হিজিবিজি ব্লগ টিম কর্তৃক প্রকাশিত প্রতিবেদন লেখার নিয়মআবেদন পত্র লেখার নিয়ম শীর্ষক ব্লগ পড়তে পারেন। আশা করছি, আপনার কাজে আসবে।

বয়স ক্যালকুলেটর 

হিজিবিজি আপনাদের সুবিধার জন্য নিম্নের বয়স ক্যালকুলেটর ডেভলপ করেছে। এই বয়স ক্যালকুলেটর এর মাধ্যমে আপনারা খুব সহজেই বয়স বের করতে পারবেন। এছাড়াও বয়স ক্যালকুলেটর ছাড়া বয়স হিসাব করতে চাইলে আপনি বয়স ক্যালকুলেটর ব্যবহার না করে নিজেই হিসাব করতে পারেন। নিচে সেইসকম নিয়ম দেয়া হয়েছে।

বয়স বের করার ক্যালকুলেটর বা বয়স ক্যালকুলেটর 

বয়স বের করার ক্যালকুলেটর বা বয়স ক্যালকুলেটর একটি টুল যা মানুষের বয়স নির্ধারণে সহায়তা করে। বয়স ক্যালকুলেটর এর কাজের জন্য সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য উল্লেখ করে থাকে, যেমন – জন্ম তারিখ, বর্তমান তারিখ ইত্যাদি। বয়স ক্যালকুলেটর ব্যবহার করে মানুষ সহজেই বয়স নির্ধারণ করতে পারে এবং তা ব্যবহার করে বিভিন্ন গণনা এবং সাধারণ কাজে ব্যবহৃত হতে পারে।

2024-এর হিজিবিজি নির্মিত বয়স বের করার ক্যালকুলেটর-এ নতুন ফিচার সংযুক্ত হয়েছে, যা ব্যবহারকারীদের অধিক সহজে তাদের বয়স নির্ধারণ করতে সাহায্য করে। এই ফিচারগুলি ব্যবহারকারীদের বয়স গণনার কাজকে অনেক সহজ করে দিয়েছে। এই উন্নত বয়স ক্যালকুলেটর ব্যবহার করে মানুষের বয়স গণনা করা হয়ে থাকে খুবই সহজে।

অনলাইন বয়স ক্যালকুলেটর 

অনলাইনে বয়স বের করার সহায়তা এখন অত্যন্ত সহজ এবং সহজবোধ্য হয়েছে। হিজিবিজির ওয়েবসাইটসহ বিভিন্ন ওয়েবসাইট এবং অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে মানুষেরা নিজেদের বয়স নির্ধারণ করতে পারেন খুব সহজে। অনলাইনে বয়স বের করার সফটওয়্যার ব্যবহার করে ব্যবহারকারীরা নিজের জন্ম তারিখ এবং বর্তমান তারিখ উল্লেখ করে তাদের বয়স নির্ধারণ করতে পারেন। এছাড়াও, কিছু ওয়েবসাইট এবং অ্যাপ্লিকেশনে আপনার বয়স নির্ধারণে সাহায্য করার জন্য আরও বিশেষ ফিচার উপলব্ধ থাকতে পারে।

বয়স বের করার সহজ পদ্ধতি 

আপনি যে তথ্য প্রদান করেছেন, তা বিশ্লেষণ করে নিম্নলিখিত বয়স বের করার সহজ পদ্ধতি অনুসরণ করে সেই তথ্যের উপর ভিত্তি করে আপনার বয়স নির্ধারণ করা যেতে পারে:

  1. আপনি যে তারিখে জন্ম গ্রহন করেছেন তা প্রদান করুন। এটি মাস, দিন এবং সালের ফরম্যাটে হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, “12 ডিসেম্বর, 1990″।
  2. জন্ম তারিখ থেকে বর্তমান তারিখ বিয়োগ করে বয়স নির্ধারণ করুন।
  3. প্রদত্ত তথ্যের উপর ভিত্তি করে আপনার বয়স নির্ধারণ করুন।

উপরের তথ্য অনুযায়ী, নতুন একটি উদাহরণ লেখা যেতে পারে:

জন্ম তারিখ: 10 ফেব্রুয়ারি, 1995

বর্তমান তারিখ: 5 মার্চ, 2024

তাহলে, আমাদের বয়স হলো:

2024 সাল – 1995 সাল = 29 বছর (বা 29 years)

বর্তমান মার্চ থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত 1 মাস অতিক্রম হয়েছে, তাহলে এই মাসগুলি যোগ করা হবে।

তাহলে, আপনার বয়স হলো 29 বছর এবং 23 দিন।

উপরোক্ত উদাহরণ অনুযায়ী, আপনার নিজের বয়স বের করার সহজ পদ্ধতি এটাকেই বলা যেতে পারে। এর থেকেও সহজ পদ্ধতি চাইলে হিজিবিজির বয়স ক্যালকুলেটর ব্যবহার করুন।

অনলাইন সহায়তা 

অনলাইনে বয়স বের করার জন্য সহায়তা পেতে আপনি নিম্নলিখিত পদ্ধতিগুলি ব্যবহার করতে পারেন:

  1. বয়স বের করার সফটওয়্যার বা অনলাইন ক্যালকুলেটরগুলি: অনেক ওয়েবসাইট এবং মোবাইল অ্যাপ বিভিন্ন ধরনের বয়স ক্যালকুলেটর প্রদান করে। এই ক্যালকুলেটরগুলির মাধ্যমে আপনি আপনার জন্ম তারিখ এবং বর্তমান তারিখ প্রদান করে আপনার বয়স নির্ধারণ করতে পারেন।

এই পদ্ধতি ব্যবহার করে আপনি সহজেই আপনার বয়স নির্ধারণ করতে পারেন। আপনি যদি আরও বিস্তারিত জানতে চান তাহলে অনলাইনে পাওয়া টিউটোরিয়াল বা পর্যালোচনা ভিডিও দেখতে পারেন।

চাকরির বয়স বের করার পদ্ধতি এবং এর গুরুত্ব

চাকরির বয়স বের করা এবং এর গুরুত্ব অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ যেটি একজন করতে পারেন। চাকরির বয়স নির্ধারণের জন্য মূলত আপনি আপনার চাকরি যোগদানের তারিখ এবং বর্তমান তারিখ ব্যবহার করতে পারেন। এটি একটি প্রাথমিক বা প্রায় ব্যবহৃত পদ্ধতি হিসেবে বিশ্বস্ত হয়।

চাকরির বয়স বের করার গুরুত্ব নিম্নলিখিত কারণগুলির জন্য মৌলিক:

পেনশন এবং সুবিধা হিসাবে: অনেক সরকারী এবং বেসরকারী সংস্থা চাকরিজীবীদের বয়সের ভিত্তিতে পেনশন এবং অন্যান্য সুবিধা প্রদান করে। চাকরির বয়স নির্ধারণ করা এই সুবিধাগুলির প্রাপ্তি এবং যে সুবিধাগুলি আপনাকে উপলব্ধ হবে তা জানা গুরুত্বপূর্ণ।

অধিকাংশ কর্মপরিকল্পনা: চাকরির বয়স নির্ধারণ করে আপনি আপনার ভবিষ্যতের কর্মপরিকল্পনা করতে পারেন। এটি আপনাকে আপনার পেনশনের জন্য সংরক্ষিত অর্থের পরিমাণ অথবা অন্যান্য অর্জনের উপযুক্ততা নির্ধারণ করতে সাহায্য করবে।

প্রশাসনিক কার্যকর হবার সম্ভাবনা: চাকরির বয়স বের করা সহজে আপনার প্রশাসনিক কার্যকর হওয়াতে সাহায্য করবে। এটি আপনার উত্তরদাতার সাথে আপনার কর্মসূচি এবং কর্মসংস্থান নির্ধারণ করতে সাহায্য করতে পারে।

চাকরির বয়স নির্ধারণ করা আপনার আরো অনেক ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে, তবে এটি অনেক সময় অনিশ্চিততা সৃষ্টি করতে পারে যেমন চাকরির প্রদান, সুবিধা, কর্মসংস্থান ইত্যাদি। তাই সঠিকভাবে বয়স বের করার জন্য প্রাথমিক তথ্য ও বোর্ডের সাথে যোগাযোগ করা উচিত।

বয়স বের করার নিয়ম এবং সামাজিক প্রয়োজনীয়তা 

সমাজের মধ্যে বয়স বের করার নিয়ম এবং প্রয়োজনীয়তা অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। সম্প্রদায়ের মাঝে বয়স নির্ধারণ এবং বয়স সম্পর্কিত তথ্যের প্রয়োজনীয়তা নিম্নলিখিত কিছু কারণে গুরুত্বপূর্ণ:

  1. স্বাস্থ্য যত্নের জন্য: সমাজের মধ্যে বয়স নির্ধারণ করা জরুরি হতে পারে যাতে মানুষের স্বাস্থ্য যত্নের প্রয়োজনীয় পরিমাণ এবং সঠিক সেবা প্রদান করা যায়।
  2. শিক্ষার পর্যায়ে: বয়স সম্পর্কিত তথ্যের প্রয়োজনীয়তা শিক্ষার পর্যায়ে অনেক গুরুত্বপূর্ণ, যাতে শিক্ষার্থীরা তাদের বয়স এবং উপযুক্ত সেবা প্রয়োজন সম্পর্কে সঠিক ধারণা পেতে পারেন।
  3. আইন ও বিধির মেলামেশা: সমাজের মধ্যে বয়স বের করার নিয়ম এবং বিধিমালা স্থাপন করে তাদের প্রয়োজনীয়তা নিশ্চিত করতে হয় যাতে বুঝতে পারেন যে সমাজ সদস্যরা বিভিন্ন বয়সের মানুষের প্রয়োজনীয় সেবা প্রদান করতে পারে।
  4. সমস্ত সমাজের উন্নতি: একটি সমগ্র সমাজের উন্নতি এবং সামাজিক উন্নতির জন্য বয়স বের করার নিয়ম এবং প্রয়োজনীয়তা গুরুত্বপূর্ণ। সমাজের সদস্যরা প্রত্যেকের মধ্যে সমান্তরাল সহযোগিতা ও সহানুভূতি উন্নত করার জন্য এই ধরনের তথ্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

সমাজের মধ্যে বয়স নির্ধারণ এবং প্রয়োজনীয়তা প্রমাণিত করে যে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় কাজ। এটি সমাজের সামাজিক ও আর্থিক উন্নতিতে অবদান রেখে যে সমাজ প্রগতি করে সে সমাজ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মতো উন্নতি করতে সক্ষম হবে।

বয়স বের করার ক্যালকুলেটর এর ব্যবহার

বয়স বের করার ক্যালকুলেটর ব্যবহার করার জন্য প্রস্তুতি এবং প্রশিক্ষণ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই প্রস্তুতি এবং প্রশিক্ষণ নিম্নলিখিত কিছু বিষয়ে ভিত্তি করে:

  1. তথ্য সংগ্রহ: বয়স বের করার জন্য উপযুক্ত তথ্য সংগ্রহ করা প্রয়োজন, যেমন জন্ম তারিখ, বর্তমান তারিখ ইত্যাদি।
  2. ক্যালকুলেটরের ব্যবহার: একটি বয়স ক্যালকুলেটর ব্যবহার করার জন্য ঠিকমতো প্রশিক্ষণ প্রদান করা প্রয়োজন। এটি যেহেতু গাণিতিক ক্যালকুলেশনের ভিত্তিতে কাজ করে, তাই ব্যবহারকারীদের গণনা ও সঠিক তথ্য প্রবেশের জন্য তাদের সঠিক নির্দেশনা দেওয়া প্রয়োজন।
  3. ভুল ও বিশেষ মনিটরিং: যে কোনও প্রশিক্ষণের পরে, ব্যবহারকারীদের প্রশিক্ষণ প্রদানের পরিণাম নিয়ে নিরাপত্তা অবলম্বন করা প্রয়োজন। এটি ভুল পর্যবেক্ষণ এবং সঠিক ব্যাখ্যা প্রদানের মাধ্যমে সংশোধিত করতে সাহায্য করে।
  4. ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা: ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা এবং তাদের পূর্ববর্তী অভিজ্ঞতা উপর ভিত্তি করে প্রশিক্ষণ প্রদান করা উচিত। এটি তাদের সমস্যা সমাধানে ও ব্যবহারে সাহায্য করে।
  5. প্রতিস্থাপন এবং সংশোধন: ব্যবহারকারীদের যদি কোনও অসন্তোষ বা বিপর্যয় থাকে, তবে বয়স বের করার ক্যালকুলেটরের প্রতিস্থাপন এবং সংশোধন করা উচিত।

উপরোক্ত কারণে বয়স বের করার ক্যালকুলেটরের প্রস্তুতি এবং প্রশিক্ষণ গুরুত্বপূর্ণ এবং অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। এটি ব্যবহারকারীদের সঠিক বয়স সংগ্রহ ও ব্যবহারে সাহায্য করে।

বয়স বের করার নিয়মের আইনী প্রয়োজনীয়তা

বয়স বের করার নিয়মের আইনী প্রয়োজনীয়তায় অনেকটাই সহায়ক। এই বিষয়ে আইনগত প্রাথমিকতা নিম্নলিখিত দিকে মনোনিবেশ করে:

ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষা: অনলাইনে বয়স বের করার প্রসেসে ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আইন এই তথ্যের সুরক্ষা ও গোপনীয়তা সংরক্ষণ সম্পর্কে নির্দেশনা দেয়।

বিনামূল্যে সেবা সরবরাহ: বয়স বের করার সেবা সম্পর্কে আইন স্পষ্টভাবে নির্দেশ দেয় যে, এই সেবা বিনামূল্যে অবশ্যই সরবরাহ করা উচিত।

ব্যক্তিগত তথ্যের প্রয়োগ: ব্যক্তিগত তথ্যের সঠিক ব্যবহার এবং সংরক্ষণ নিশ্চিত করতে আইন প্রাথমিক গুরুত্ব দেয়।

অনুমতি ও অনুমোদন: ব্যক্তিগত তথ্যের ব্যবহারের জন্য অনুমতি অনুমোদন আইন অনুসারে প্রয়োজন।

দোষ ও অপরাধ: যদি কোনও অনুমোদিত সংগ্রহণ বা ব্যবহার কোনও অপরাধের সঙ্গে জড়িত হয়, তবে আইন বিষয়ে শাস্তিপ্রাপ্তির জন্য প্রয়োজনীয় উপায় নিয়ে তথ্য দেয়।

অতএব, বয়স বের করার নিয়মের আইনী প্রাথমিকতা বিষয়ে সঠিক জ্ঞান ও সচেতনতা সংগ্রহ করা গুরুত্বপূর্ণ। এটি ব্যক্তিগত ও সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয়।

বয়স ক্যালকুলেটর নিয়ে প্রাথমিক পরামর্শ

নতুনদের জন্য বয়স বের করার নিয়মের প্রাথমিক পরামর্শ নিম্নলিখিত হতে পারে:

আধিকারিক দলত্ব বোধগম্য হোন: বয়স বের করার জন্য নির্ধারিত পদ্ধতিতে আপনার আধিকারিক দলত্ব বোধগম্য হোন। আপনাকে ব্যক্তিগত তথ্য সংরক্ষণ এবং প্রাইভেসির জন্য সতর্ক হতে হবে।

ভূমিকা বুঝুন: বয়স বের করার উদ্দেশ্য এবং তা আপনার জীবনের সাথে কীভাবে সংযোগিত তা বুঝতে গিয়ে স্বচ্ছতা অবলম্বন করুন।

ভালো সেবা সরবরাহ: আপনি যে কোন অনলাইন সেবা ব্যবহার করতে চান, তা ভালোভাবে সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নিন। অবাঞ্ছিত ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন এবং সুরক্ষিত ও নিরাপদ সাইবার পরিবেশের জন্য প্রয়োজনীয় পূর্বশর্ত মেনে চলুন।

অনলাইন সুরক্ষা মেনে চলুন: অনলাইনে তথ্যের সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য সামাজিক মাধ্যমে সঠিক সুরক্ষা প্রক্রিয়া বুঝুন।

অনলাইন সহায়তা সন্ধান করুন: যদি কোন সন্দেহজনক বা অপ্রিয় অভিজ্ঞতা অনুভব করেন, তবে সাথে অনলাইন সহায়তা দেওয়া ওয়েবসাইট বা প্রতিষ্ঠানে যোগাযোগ করুন।

সাম্প্রতিক সংবাদ এবং আপডেট নিয়ন্ত্রণ করুন: অনলাইনে বয়স বের করার জন্য যেকোনো উপায়ে বিনিয়োগ করার আগে সাম্প্রতিক সংবাদ এবং প্রযুক্তি সম্পর্কে নতুন আপডেট সংগ্রহ করুন।

প্রশিক্ষণ ও সহায়তা: বয়স বের করার উপায়ে প্রশিক্ষণ অর্জন করুন এবং যদি আপনি যেকোনো সমস্যায় পরিপ্রেক্ষিত হন, তবে সাহায্যের জন্য উপলব্ধ সহায়তা প্রদানকারী সম্প্রদায় সন্ধান করুন।

এই প্রাথমিক পরামর্শগুলি মেনে চলে আপনি অনলাইনে বয়স বের করার প্রস্তুতি এবং সাম্প্রতিকতম প্রয়োজনীয় সুরক্ষা অনুসরণ করতে পারেন।

বয়স বের করার নিয়মের একটি উদাহরণ এবং প্রয়োগ।

একটি উদাহরণ দেওয়ার জন্য, ধরা যাক আমরা জন্ম তারিখ এবং বর্তমান তারিখ ব্যবহার করে বয়স বের করতে চাই।

উদাহরণস্বরূপ, আমাদের জন্ম তারিখ হল 1 জানুয়ারি, 1990 এবং বর্তমান তারিখ হল 1 জানুয়ারি, 2024।

এই তথ্য ব্যবহার করে আমরা বয়স বের করতে পারি।

প্রথমত, আমাদের জন্ম তারিখ থেকে বর্তমান তারিখ বিয়োগ করবো:

2024 (বর্তমান তারিখ) – 1990 (জন্ম তারিখ) = 34 বছর

তাহলে আমাদের বয়স হল 34 বছর।

এটি হল বয়স বের করার একটি সরাসরি উদাহরণ এবং প্রয়োগ।

সারাংশ:

এই নিবন্ধটি বয়স বের করার নিয়ম এবং তা ব্যবহারের প্রস্তুতি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করে। এটি একটি সহজ ধারণা প্রদান করে যেভাবে ব্যক্তির জন্ম তারিখ থেকে বর্তমান তারিখ ব্যবহার করে তার বয়স নির্ধারণ করা যায়। এছাড়াও, চাকরির বয়স নির্ধারণ এবং তার গুরুত্ব, সমাজে বয়স বের করার প্রয়োজনীয়তা, প্রাথমিক পরামর্শ, আইনানুযায়ী প্রাথমিকতা, প্রয়োগ, এবং পরবর্তী ধাপ সম্পর্কে কয়েকটি উদাহরণ দেওয়া হয়েছে।

যে ব্যক্তিরা বয়স বের করার পদ্ধতিতে অভিজ্ঞ নন, তাদের জন্য এটি সাধারণত একটি সহজ ধারণা প্রদান করে। প্রথমে, সাধারণ জন্ম তারিখ থেকে বর্তমান তারিখ ব্যবহার করে বয়স নির্ধারণ করা যায়। এরপর, বিভিন্ন সম্প্রদায়ে বয়স বের করার পদ্ধতি, চাকরির বয়স নির্ধারণ, প্রাথমিক পরামর্শ, আইনানুযায়ী প্রাথমিকতা, এবং পরবর্তী ধাপ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে তাদের নিজস্ব প্রতিষ্ঠানের মেধা বা কোনও সহায়তা প্রদানকারী সংস্থা অনুসরণ করা উচিত।

ব্লগটি পড়ার উদ্দেশ্য

ব্লগটি পড়ার উদ্দেশ্য হল আপনার বয়স বের করার ক্যালকুলেটর ব্যবহার করে আরও বিস্তারিত জানার এবং সম্পূর্ণ বোঝার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা। এই ধাপগুলির মধ্যে অন্যত্র প্রয়োগের সময়, একাধিক উদাহরণ দেখানো, বিভিন্ন বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা, প্রশিক্ষণ বা পরামর্শ গ্রহণ ইত্যাদি অংশ থাকতে পারে। এই ধাপগুলি সঠিক বয়স নির্ধারণের বাস্তবায়নে সাহায্য করতে পারে এবং ব্যক্তিগত সম্পর্কে সঠিক ধারণা প্রদান করতে পারে। এছাড়াও, পরবর্তী পড়া আপনাকে আরও প্রাসঙ্গিক উপায়ে বয়স নির্ধারণের উপকারিতা সম্পর্কে সচেতন করতে সাহায্য করবে।

বয়স ক্যালকুলেটর | বয়স বের করার নিয়ম FAQ

জন্ম তারিখ থেকে বয়স বের করার দ্রুততম উপায় হলো বর্তমান তারিখ থেকে জন্ম তারিখ বিয়োগ করা।

বর্তমান বয়স বের করতে হলে আপনি নিম্নলিখিত পদ্ধতিতে যে কোনটি ব্যবহার করতে পারেন:

  • জন্ম তারিখ থেকে বর্তমান তারিখ বিয়োগ করা।
  • অনলাইন বয়স ক্যালকুলেটর ব্যবহার করা।

বয়স নির্ণয়ের সঠিক পদ্ধতি হলো জন্ম তারিখ থেকে বর্তমান তারিখ বিয়োগ করে বয়স নির্ণয় করা।

  • সর্বোচ্চ ইংরেজি ও গণিত শিক্ষার নমুনামূলক সূত্র ব্যবহার করা।
  • অনলাইন সরঞ্জাম ব্যবহার করা।

জন্ম তারিখ থেকে বয়স বের করার দ্রুততম উপায় হলো বয়স ক্যালকুলেটর ব্যবহার করে বয়স নির্ণয় করা। এক্ষেত্রে হিজিবিজির বয়স ক্যালকুলেটর অনেকটাই বিশ্বস্থ।

    Share this article
    0
    Share
    Shareable URL
    Prev Post

    দিনলিপি লেখার নিয়ম | ১৩ টি দিনলিপি (PDF)

    Next Post

    জয়েন উদ্দিন সরকার তন্ময়’র কবিতা: ছেড়ে দিয়ে বাঁচি

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Read next

    ৩০ নভেম্বর ও বুদ্ধদেব বসু

    বুদ্ধদেব বসু ছিলেন একজন বাঙালি কবি, কথাসাহিত্যিক, প্রাবন্ধিক, নাট্যকার, অনুবাদক, সম্পাদক ও সাহিত্য সমালোচক। তিনি…
    30-november-and-buddhadeb-boshu
    0
    Share